মোবাইল কেনার আগে যা জানা দরকার

মোবাইল কেনার আগে যা জানা দরকার

নতুন মোবাইল কেনা একটি বড় চ্যালেঞ্জ বললে চলে। স্মার্টফোন এর বাজারে একই দামে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের অথবা একই ব্র্যান্ডের একাধিক মোবাইল রয়েছে। তাই কোন ফোনটি ছেড়ে কোনটা কিনবেন, সেটা নিয়ে একটা বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়। মোবাইল ফোনও এখন জীবনের একটিঅবিচ্ছেদ্য অঙ্গ হয়ে উঠেছে। তাই মোবাইল কেনার সময়েও সচেতনতা খুব জরুরি।

আজকে আমি মোবাইল কেনার আগে যা জানা দরকার তা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবো ।

ডিসপ্লে

মোবাইল কেনার আগে ফোনের কেমন তা দেখা জরুরি । বড় ডিসপ্লের ফোনে সবকিছু বেশি ভাল করে দেখতে সাহায্য করে। আগে ফোনের সাইজ 1-5 ইঞ্চির হত কিন্তু এখন ফোনের সাইজ 6 ইঞ্চির বেশি হয়। ফোন কিনার আগে ডিসপ্লে কোয়ালিটি দেখে নিন। এছাড়াও ডিসপ্লের রেজুলেশন কত, ডিসপ্লের শার্পনেস কেমন, ডিসপ্লেটি ডিরেক্ট সানলাইটে কেমন পারফর্ম করে তা যাচাই বাছাই করে নিন।

ক্যামেরা

এখন আমরা ফোন কেনার আগে ফোনের ক্যামেরা কত মেগাপিক্সেল শুধু তা দেখি। আসলে ফোনের ক্যামেরা কেমন হবে তা তার লেন্স আর মেগাপিক্সল আর রেজিলিউশানের ওপরে নির্ভর করে। তাই ফোন কেনার আগে ফোনের ক্যামেরার ডিটেইলস দেখে নিবেন।

স্টোরেজ

ফোনের র‍্যামের মত একটি ফোন কেনার আগে ফোনের স্টোরেজ বিষয়টিও দেখে নেওয়ার জরুরি। আপনার ফোনের স্টোরেজ যত বেশি হবে ফোনের স্পেস বেশি হবে । তাই ফোনে আপনি বেশি অ্যাপ বা বেশি ডকুমেন্ট সেভ করে রাখতে পারবেন।

র‍্যাম

ফোনে বেশি র‍্যাম থাকলে ফোন মাল্টি টাস্কার বেশি হয়। আগের 1-3GB র‍্যামের ফোনে কাজ করতে যে সময় লাগত এখন 4,6,8,12 জিবি র‍্যামের ফোনে তার থেকে অনেক কম সময়ে ভাল ভাবে ফোনে কাজ করা যায়। তাই ফোন কিনার আগে র‍্যাম কত দেখে নিবেন।

প্রসেসার স্পেসিফিকেশান

সব প্রসেসারের নিজস্ব কিছু স্পেক্স আছে যার মধ্যে একটি হল প্রসেসার কোর্স। যার মধ্যে আছে ক্লক স্পিড। এখনকার প্রসেসার স্পিড হল “1.4GHz Octa-Core” বা “2.0GHz” কোয়াড কোর। আর এখানে আপনাদের বলে রাখি যে এগুলি কিন্তু ফোনের পার্ফর্মেন্স কেমন হবে তা ঠিক করে না। তবে এটি প্রসেসারের একটি দরকারি দিক। ফোনের প্রসেসারের কোর্স বেশি হলে ভাল পার্ফর্মেন্স হয়।

প্রসেসার

আমরা অনেকেই জানি যে ফোনের খুব দরকারি একটি জিনিস হল ফোনের প্রসেসার। আপনার স্মার্টফোনে যত বেশি প্রসেসার থাকবে ফোন তত ভাল কাজ করবে। সবচেয়ে শক্তিশালী প্রসেসার বর্তমানে কোয়াল্কম স্ন্যাপড্র্যাগন 888। তাই ভালো প্রসেসর দেখে মোবাইল কিনবেন।

ক্লক স্পিড

এই ক্লক স্পিডের জন্যই প্রসেসার কোন কাজ তাড়াতাড়ি করতে পারে। এই স্পিড GhZ দিয়ে মাপা হয়। আর আজকাল এই স্পিড 2.9GHz পর্যন্ত হয়।

গ্রাফিক্স প্রসেসার ইউনিট

গ্রাফিক্স প্রসেসার ইউনিটকেই GPU বলে। আর একটি প্রসেসারের জন্য একটি GPU থাকা দরকার । ফোনে GPU কেমন তা আগে দেখে নিবেন।

প্যানেল টাইপ

আমরা জানি যে ফোনের প্যানেল টাইপের মধ্যেই আছে AMOLED, Supar AMOLED বা অপ্টিক AMOLED য়ের মতন বিষয় গুলি যা আসলে সবই OLED প্রযুক্তির আলাদা আলাদা ভেরিয়েন্ট। তাই ফোন কিন্নার আগে প্যানেল টাইপ দেখে কিনুন ।

ফোনের ডিসপ্লের আরও একটি অঙ্গ হল ফোনের রেজুলেশন। বেশি রেজুলেশন এর ডিসপ্লে , কম রেজুলেশন ডিসপ্লের তুলনায় বেশি ব্যাটারি শেষ করে।

ব্যাটারি

ফোনের শক্তিশালী ব্যাটারি যে ফোনের দরকারি জিনিস তা আমরা জানি। তাই ফোন কেনার আগে ফোনের ব্যাটারি কত mAh এর তা দেখে নিন।

অপারেটিং সিস্টেম

ফোনের কেনার সময়ে ফোনের অপারেটিং সিস্টেমও দেখা দরকার । ফোনের অপয়ারেটিং সিস্টেম ফোনের অত্যন্ত দরকারি বিষয়। ফোনের অপারেটিং সিস্টেম অ্যান্ড্রয়েড বা iOS হয় আর যে ফোনই কিনুন দেখে নেবেন যে ফোনের অপারেটিং সিস্টেম যেন লেটেস্ট ভার্সনে থাকে।

  • স্মার্টফোনে যত বেশি শক্তিশালী প্রসেসার থাকবে ফোন তত ভাল কাজ করবে।
  • ফোনের ক্যামেরা কেমন হবে তা তার লেন্স আর মেগাপিক্সল আর রেজুলেশন এর ওপরে নির্ভর করে।

Leave a Reply