Guides & Tips

মোবাইল নাম্বার দিয়ে জাতীয় পরিচয় পত্র বের করা

জাতীয় পরিচয় পত্র প্রত্যেক নাগরিকের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি ডকুমেন্ট। বাংলাদেশ সরকারের নিয়ম অনুযায়ী প্রত্যক ১৮ বছর বয়সী নাগরিক এর জন্য ভোটার আইডি করা বাধ্যতামূলক। আর তাই ১৮ বছর হলে সকল নারী ও পুরুষ ভোটার আইডি কার্ড বা জাতীয় পরিচয় পত্রের জন্য আবেদন করতে পারবে।

অনেক সময় ভোটার আইডি কার্ড সাথে না থাকার কারণে প্রয়োজনের সময় আমরা আইডি কার্ডের নাম্বারটি কাউকে বলতে পারি না। এছাড়াও আমরা অনেক সময় ভোটার আইডি কার্ড হারিয়ে ফেলি। যার কারণে নতুন করে ভোটার আইডি কার্ড বা জাতীয় পরিচয় পত্র তোলার জন্য আইডি নাম্বারের প্রয়োজন পড়ে।

কেমন হয় যদি আমরা আমাদের মোবাইল নাম্বার দিয়েই জাতীয় পরিচয় পত্রের নম্বর বের করে ফেলতে পারি? অবিশ্বাস্য হলে সত্য যে মোবাইল নাম্বার দিয়ে জাতীয় পরিচয় পত্র দেখা সম্ভব। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক কিভাবে মোবাইল নাম্বার দিয়ে জাতীয় পরিচয় পত্র দেখতে হয়।

প্রথমে আপনি আপনার মোবাইল ফোনের ডায়াল অপশনে চলে যাবেন। সেখানে গিয়ে ডায়াল করবেন *১৬০০# । তারপর আপনাদের সামনে একটি ইন্টারফেস চলে আসবে। এই ইন্টারফেস এর ২ নম্বর অপশনটিতে আপনারা ক্লিক করবেন।

তারপরের স্টেপে আপনারা ওকে করে দিবেন। কিছুক্ষণের মধ্যেই আপনাদের ফোনে একটি এসএমএস চলে আসবে। সে এসএমএসে আপনারা জাতীয় পরিচয় পত্রের নাম্বার জানতে পারবেন। এক্ষেত্রে আপনার কাছ থেকে কোনো চার্জ কাটা হবে না।

আশা করি বুঝতে পেরেছেন। তাই যেকোন প্রয়োজনে জাতীয় পরিচয়পত্রের নাম্বার জানতে হলে আপনারা এই পদ্ধতি অবলম্বন করতে পারেন।

ভোটার নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড বের করার নিয়ম

ভোটার নাম্বার দিয়ে আইডি কার্ড বের করার জন্য প্রথমে https://services.nidw.gov.bd/ এই ওয়েবসাইটে যেতে হবে। তারপর ওপরের মেনু থেকে ক্লিক করুন “ভোটার তথ্য” নামের অপশনটিতে। এরপর আপনি আপনার ভোটার নম্বর ও আপনার জন্ম তারিখ দিয়ে সাবমিট করে দিবেন। এরপরই আপনি আপনার ভোটার আইডি কার্ডটি দেখতে পাবেন। উপরে ডাউনলোড করার অপশন আছে। আপনি চাইলে সেটি ডাউনলোড ও করে রাখতে পারেন।

টোকেন দিয়ে আইডি কার্ড বের করার নিয়ম

আপনার কাছে যেই টোকেনটি আছে সেটি দিয়েও আপনি আইডি কার্ড বের করতে পারেন। এজন্য আপনাকে আগের মতোই https://services.nidw.gov.bd/ এই ওয়েবসাইটটিতে যেতে হবে। তারপর ওপরের মেনু থেকে ক্লিক করুন “ভোটার তথ্য” নামের অপশনটিতে। এরপর আপনি আপনার টোকেন নম্বর ও আপনার জন্ম তারিখ দিয়ে সাবমিট করে দিবেন। এরপরই আপনি আপনার ভোটার আইডি কার্ডটি দেখতে পাবেন।

Leave a Reply

Back to top button