Guides & Tips

মোবাইল দিয়ে গ্রাফিক্স ডিজাইন এবং ইনকাম

মোবাইল দিয়ে গ্রাফিক্স ডিজাইন করা অসম্ভব মনে হলেও এই অসম্ভবকে সম্ভব করে দিয়েছে Canva -Graphics Design অ্যাপটি। অ্যাপটির মাধ্যমে আপনি চাইলে প্রফেশনালি গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখতে পারেন শুধুমাত্র একটি স্মার্টফোনের মাধ্যমে। এখন প্রশ্ন হলো কিভাবে কাজ করবেন এবং কিভাবে এই স্কিলটিকে কাজে লাগাবেন।

প্রথমে জেনে নেওয়া যাক এই অ্যাপটি দিয়ে আপনি কি কি ডিজাইন করতে পারবেনঃ

  • Facebook Page Cover Design
  • Facebook cover photo design
  • Infographics Design
  • Logo Design
  • Company Card

তবে এর বাহিরেও আরো অনেক কিছু প্রফেশনালভাবে ডিজাইন করা যায় এই অ্যাপটির মাধ্যমে।

Canva

  • প্রথমে আপনি গুগল প্লে স্টোরে গিয়ে Canva লিখে সার্চ করুন। সার্চ করলেই আপনার সামনে চলে আসবে অ্যাপটি। এটি ডাউনলোড করুন এবং ইন্সটল করে ফেলুন।
  • এরপর অ্যাপটি ওপেন করে একটি অ্যাকাউন্ট খুলে ফেলুন।
  • অ্যাকাউন্ট খোলার পরে দেখতে পারবেন গ্রাফিক্স ডিজাইন করার অপশন। এখন আপনার দরকার অনুযায়ী যেকোনো অপশন সিলেক্ট করে বানিয়ে ফেলুন ডিজাইন।
  • এছাড়াও এখানে বিভিন্ন ধরনের টেমপ্লেট রয়েছে যেগুলো আপনি ব্যবহার করে সহজেই একটি ডিজাইন তৈরী করতে পারবেন। টেম্পলেটগুলোকে আপনার দরকার অনুযায়ী ব্যবহার করে আপনি বিভিন্নভাবে কাস্টোমাইজ ও করতে পারবেন।

বিঃদ্রঃ কম্পিউটার এর ফটোশপ দিয়ে যেভাবে গ্রাফিক্স ডিজাইন করা যায় সেভাবে এই অ্যাপ দিয়ে ডিজাইন করা সম্ভব নয়।

Pixel lab

Pixellab সুবিধা হচ্ছে এটি আপনি ইন্টারনেট ছাড়াও ব্যাবহার করতে পারবেন। Pixellab ব্যবহার করতে ইন্টারনেট কানেকশন অন করার কোন প্রয়োজন হয় না।

কম্পিউটার ফটোশপ দিয়ে যেমন layer এর মাধ্যেমে গ্রাফিক্স ডিজাইনের কাজ করা যায়। একইভাবে পিক্সেল ল্যাব অ্যাপস দিয়েও আপনি এমন কাজ করতে পারবেন।

আপনার মনমতো ক্যানভাস ও অন্যান্য সব ধরনের টুল এখানে পাবেন যেসব টুল কম্পিউটার ফটোশপে পান।

পিক্সেল ল্যাব ব্যবহার করে যেই ডিজাইন করবেন, সেটি প্রজেক্ট হিসেবে .PLP ফাইলে save করে শেয়ার করতে পারবেন।

উল্লেখ্য যে বর্তমান সময়ে গ্রাফিক্স ডিজাইন এর সবচেয়ে জনপ্রিয় তিনটি ফাইল এক্সটেনশন হলো .plp .psd .ai.

এছাড়াও আরো অনেক ধরনের সফটওয়্যার রয়েছে যেটি দিয়ে মোবাইলের মাধ্যমে গ্রাফিক্স ডিজাইনের কাজ করতে পারেন। তবে এই দুটি সফটওয়্যার সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় এবং এগুলো দিয়ে কাজ করা যায় খুব সহজেই।

এখন কথা হলো এই স্কিলটি কাজে লাগিয়ে কি ইনকাম করা সম্ভব?

হ্যাঁ সম্ভব। Fiverr এ কাজ করে আপনি সহজেই ইনকাম করতে পারেন।

Fiverr এ আপনি দুই ভাবে ইনকাম করতে পারেন।

১) গিগ বিক্রি করেঃ আপনি যেই ডিজাইনটি খুব ভালোভাবে করতে পারেন ওই ডিজাইনটি নিয়ে একটি গিগ বানান। গিগ বানানো হয়ে গেলে পাবলিশ করুন। কেউ যদি আপনার গিগ অর্ডার করে এবং আপনি যদি তার কাজটি ঠিকঠাক মতো করে দিতে পারেন, তাহলেই আপনি টাকা পাবেন। একটি গিগ সর্বনিম্ন ৫ ডলারে বিক্রি হয়ে থাকে। গিগ বানানোর কৌশল জেনে তবেই গিগ বানাবেন, এর আগে নয়।

২) অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করেঃ এক্ষেত্রে আপনি এই লিঙ্কে ক্লিক করে ফিবারে একটি অ্যাফিলিয়েট একাউন্ট খুলুন। তারপর অ্যাফিলিয়েট লিঙ্কটি বিভিন্ন জায়গায় শেয়ার করে দিন। কেউ যদি আপনার অ্যাফিলিয়েট লিঙ্কে ক্লিক করে ফিবার থেকে কোনো গিগ কিনে তাহলেই আপনি একটি ভালো কমিশন ইনকাম করতে পারবেন। নিচের ভিডিওটি দেখে আজই কাজ শুরু করে দিন।

যদি কোন বড় কোম্পানি গ্রাফিক্স ডিজাইন করাতে চায়, তাহলে তো তারা কোনো প্রফেশনাল গ্রাফিক্স ডিজাইনারের কাছ থেকেই সেটি করিয়ে নিবে। আর এটাই স্বাভাবিক।

কিন্তু এমন অনেক লোক রয়েছে যারা ছোটখাট ডিজাইন করাতে চায় কম টাকার মাধ্যমে। আমরা মূলত কাজ করব এমন ক্লায়েন্টদেরকে নিয়েই।

এক্ষেত্রে আমরা সাহায্য নেব ফেসবুক সহ নানা সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম এর। সবথেকে বেশি উপকারি, ফেসবুকে বিভিন্ন গ্রুপে পোস্ট করে ক্লায়েন্ট খুঁজে নিয়ে তাদের ডিজাইন করে দেওয়া। এক্ষেত্রে মোবাইল নাকি ল্যাপটপ সেটা কোনো বড় কথা নয়।

আপনার ডিজাইন অনুযায়ী আপনি 500 কিংবা 1000 টাকা পর্যন্ত নিতে পারবেন।

শুরুতেই যদি আপনি বেশি উপার্জন করতে চান তাহলে হয়তো সম্ভব হবে না আগে ডিজাইন করা শিখুন তারপর ইনকাম নিয়ে ভাববেন।

আরো পড়ুনঃ মোবাইলে ছবি এডিটিং সফটওয়্যার

Leave a Reply

Back to top button