Guides & Tips

বিদেশি মোবাইল রেজিস্ট্রেশন করার নিয়ম

বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে যে আগামী ৩০ জুন ২০২২ সালের মধ্যে দেশের মোবাইল হ্যান্ডসেট স্বয়ংক্রিয়ভাবে নিবন্ধিত হয়ে যাবে।

১ জুলাই ২০২২ থেকে নতুন ক্রয় করা মোবাইল কিংবা বিদেশ থেকে আসা মোবাইলের নিবন্ধন প্রক্রিয়া শুরু হবে। ওইদিন থেকে যেসব হ্যান্ডসেট নেটওয়ার্কে যুক্ত হবে তার মধ্যে কোনোটি অবৈধ হয়ে থাকলে তা গ্রাহককে জানিয়ে দেওয়া হবে। তিন মাসের মধ্যে যদি গ্রাহক তার মোবাইল ফোনটি বৈধ না করে তাহলে তিন মাস পর সেই অবৈধ মোবাইলে কোনো সিমই কাজ করবে না।

বিদেশ থেকে বৈধভাবে কিনে আনা মোবাইল দেশে চালু করার পর স্বয়ংক্রিয়ভাবেই মোবাইল নেটওয়ার্কে সচল হবে। মোবাইল চালু করার দশ দিনের মধ্যে অনলাইনে তথ্য বা দলিল দিয়ে নিবন্ধন করার জন্য SMS পাঠানো হবে। যদি গ্রাহক দশ দিনের মধ্যে মোবাইল নিবন্ধন করতে পারে তাহলে ওই হ্যান্ডসেটটি ‘বৈধ’ বলে বিবেচিত হবে। আর নিবন্ধিত করতে না পারলে গ্রাহককে তিন মাস সময় দেওয়া হবে। তিন মাসের মধ্যে নিবন্ধন করতে না পারলে হ্যান্ডসেটটি অবৈধ বিবেচনা করে মোবাইলের নেটওয়ার্ক বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হবে।

বিদেশ থেকে আনা মোবাইল নিবন্ধন করার জন্য neir.btrc.gov.bd ওয়েবসাইটে গিয়ে আপনাকে একটি অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে। তারপর পোর্টালের Special Registration সেকশনে গিয়ে মোবাইল হ্যান্ডসেটের আইএমইআই নম্বরটি দিতে হবে।

বিশেষ টিপ্সঃ আইএমইআই যাচাই এর জন্য আপনার মোবাইলে *#০৬# ডায়াল করবেন। তাহলে আএমইআই নাম্বার দেখতে পাবেন, এটি বসিয়ে দিলেই হবে। এছাড়া আপনার মোবাইলের কাভারের পিছনে আইএমইআই নাম্বার থাকে এটি বসিয়ে দিলে চেক করতে পারবেন।

পাসপোর্ট, ভিসা, ইমিগ্রেশনের তথ্য, ক্রয় রসিদ ইত্যাদি সহ প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টসের ছবি স্ক্যান করে Submit করতে হবে। মোবাইলটি বৈধ হলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে নিবন্ধিত হবে। বৈধ না হলে একটি এসএমএস দিয়ে গ্রাহককে জানিয়ে দেওয়া হবে।

বর্তমান ব্যাগেজ রুলস অনুযায়ী একজন ব্যক্তি বিদেশ থেকে বিনা শুল্কে সর্বোচ্চ দুটি এবং শুল্ক দিয়ে আরও ছয়টি মোবাইল হ্যান্ডসেট সঙ্গে আনতে পারবেন।

মোবাইল হ্যান্ডসেটের বৈধতা যাচাই

আপনার মোবাইলটি বৈধ কিনা তা দেখার জন্য *১৬১৬১# নম্বরে ডায়াল করতে হবে। স্ক্রিনে অপশন এলে Status Check সিলেক্ট করতে হবে। তারপর একটি বক্স আসবে, সেখানে মোবাইল হ্যান্ডসেটের ১৫ ডিজিটের IMEI নম্বরটি লিখে পাঠাতে হবে। মোবাইলে তখন Yes/No অপশন সংবলিত একটি অটোমেটিক বক্স আসবে। তাতে Yes Select করে নিশ্চিত করতে হবে। ফিরতি মেসেজে জানিয়ে দেওয়া হবে মোবাইল ফোনের হালনাগাদ অবস্থা।

অনলাইন মোবাইল রেজিস্ট্রেশন কি?

আপনি যদি বিদেশ থেকে কোন মোবাইল আনেন তাহলে সেটি বাংলাদেশ সরকারের ডাটাবেজে থাকে না। তখন সেটি অনলাইনের মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশন করে নিতে হয়। আপনি যদি রেজিস্ট্রেশন না করে থাকেন তাহলে অবশ্যই সেটি অবৈধ মোবাইল ফোন বলেই ঘোষণা করা হবে। এমনকি আপনার নেটওয়ার্ক বিচ্ছিন্ন করা হতে পারে । মূলত এই ওয়েবসাইটে গিয়ে মোবাইল ফোনটি রেজিস্ট্রেশন করাকেই অনলাইন মোবাইল রেজিস্ট্রেশন বলে।

Leave a Reply

Back to top button